শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার পর সরাসরি শ্রেণিকক্ষে ক্লাস শুরু হবে- শিক্ষামন্ত্রী দিপু মনি

0

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কোভিড -১৯ এর বিরুদ্ধে টিকা দেওয়ার পরে আবাসিক হলগুলি চালু হবে। এরপরে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের প্রত্যক্ষ উপস্থিতিতে আগের মতো শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করা হবে।

মঙ্গলবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) এবং পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলির উপাচার্যদের সাথে এক মতবিনিময় সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

  • বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কোভিড -১৯ টিকার আওতায় আনা হবে।

শিক্ষামন্ত্রী দিপু মনির সভাপতিত্বে সভায় দেশের সকল সরকারী ও বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়কে শর্ত সাপেক্ষে প্রত্যক্ষ এবং অনলাইন পরীক্ষা দেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়। তবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলির একাডেমিক কাউন্সিলের পরামর্শে পরীক্ষা গ্রহণ ও মূল্যায়ন করা উচিত। একই সাথে, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কোভিড -১৯ টি ভ্যাকসিন প্রবর্তন সহ বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার পর সরাসরি শ্রেণিকক্ষে ক্লাস

সভার শুরুতে শিক্ষামন্ত্রী দেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাব্যবস্থা সক্রিয় ও উন্মুক্ত রাখতে ভবিষ্যতে কী পদক্ষেপ নিতে হবে সে সম্পর্কে তার বক্তব্য উপস্থাপন করেন। সভায় বিশদ আলোচনা শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের একাডেমিক জীবনকে সক্রিয় ও নিরাপদ রাখার স্বার্থে কিছু ব্যবহারিক সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই নির্দেশিকাগুলি হ’ল বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কোভিড -১৯ ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হবে। আবাসিক হলগুলির শিক্ষার্থীদের নিয়ে টিকা কার্যক্রম শুরু হবে। শর্তসাপেক্ষে শর্তসাপেক্ষে এবং অনলাইন পরীক্ষার উপস্থিতিতে পরীক্ষা পরিচালনার জন্য ইউজিসি কর্তৃক প্রদত্ত দুটি নির্দেশের সাপেক্ষে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়গুলির একাডেমিক কাউন্সিলের অনুমোদন সাপেক্ষে বিষয়টির বিষয়ে চূড়ান্ত নির্দেশনা গ্রহণ ও মূল্যায়ন করা হবে। নির্দিষ্ট নীতি আলো।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কোভিড -১৯ এর টিকা দেওয়ার পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলি চালু হবে। এরপরে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের প্রত্যক্ষ উপস্থিতিতে আগের মতো শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করা হবে। কোভিড -১৯ মহামারীর কারণে শিক্ষার্থীদের শিক্ষায় ইতিমধ্যে যে ক্ষতি হয়েছে তার ক্ষতিপূরণ দিতে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় তার নিজস্ব ক্ষমতা এবং বাস্তবতা অনুসারে একটি পুনরুদ্ধার পরিকল্পনা তৈরি করবে। এই পুনরুদ্ধার পরিকল্পনার একটি সাধারণ নির্দেশিকা বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন প্রস্তুত করে বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে প্রেরণ করবে

উপ-শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী শহিদুল্লাহ, ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক দিল আফরোজা বেগম, অধ্যাপক মোঃ সাজ্জাদ হোসেন, অধ্যাপক মুহাম্মদ আলমগীর, অধ্যাপক বিশ্বজিৎ চন্দ, অধ্যাপক ড। আবু তাহের, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলির উপাচার্য, স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের সচিব, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সভাপতি ও সেক্রেটারি জেনারেল, কোভিডের জাতীয় প্রযুক্তিগত উপদেষ্টা কমিটির সভাপতি, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং ইউজিসি উপস্থিত ছিলেন। প্রতিবেদকঃ এস এ দিপু

দেশকে এগিয়ে নিতে সবার সাথে বন্ধুত্ব বজায় রাখতে হবে -প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

Leave A Reply

Your email address will not be published.